কাঁঠাল এর পুষ্টি উপাদান এবং কাঁঠালের উপকারিতা ও অপকারিতা গুলো জেনে নিন

কাঁঠাল এর পুষ্টি উপাদান এবং কাঁঠালের উপকারিতা ও অপকারিতা গুলো জেনে নিন

কাঁঠাল আমাদের দেশের জাতীয় ফল। এটি গ্রীষ্মকালীন ফল। ফলটি তার বড় আকার, রসালো পাল্প এবং চমৎকার স্বাদের জন্য খুবই জনপ্রিয়। কাঁঠালের চামড়া কাঁটাযুক্ত ও অমসৃণ। ফলটির চমৎকার স্বাদ ও গন্ধের পাশাপাশি মানবদেহের জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান রয়েছে। কাঁঠালে উপস্থিত বিভিন্ন ভিটামিন এবং খনিজ বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকারিতা প্রদান করে। তাছাড়া, কাঁঠাল আইসোফ্ল্যাভোন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফাইটো-নিউট্রিয়েন্ট সমৃদ্ধ যা মানবদেহে ক্যান্সার প্রতিরোধ ও প্রতিরোধে ব্যাপকভাবে সাহায্য করে। কাঁঠালে উপস্থিত পুষ্টি আলসার নিরাময় করে।

গুণগত মান বা ব্যবহারিকতার দিক থেকে কাঁঠাল অন্যান্য বিদেশী ফলের চেয়ে ভালো। খাদ্যগুণ, পুষ্টি ও ব্যবহারিকতার দিক থেকে কাঁঠালের গুরুত্ব অপরিসীম। কাঁচা হোক বা রান্না, দুটোই খাবার হিসেবে সমান সুস্বাদু। কাঁঠাল শুধু একটি ফলই নয়, তরকারিও বটে। মানুষ ছাড়াও গরু ও ছাগলের খাদ্য হিসেবে কাঁঠালের পাতা ও কাঁঠাল ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। অর্থাৎ কাঁঠাল মূল থেকে মণ্ড পর্যন্ত সব জায়গায় সমান মানের এবং সর্বাধিক ব্যবহারযোগ্য। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞ জোনাথন ক্রেন বলেন, কাঁঠাল যেহেতু বহুবর্ষজীবী, তাই প্রতি বছর এটি লাগানোর প্রশ্নই আসে না। প্রতিটি গ্রীষ্মের গাছে ১৫ থেকে ২০ বছর ধরে ফল ধরে। তাছাড়া কিছু গাছে বছরে ১৫০ থেকে ২০০ কাঁঠাল ধরে।

বড় এবং স্বতন্ত্র, এই কাঁঠালের একটি কস্তুরী গন্ধ আছে। এটি গাছে জন্মানো সবচেয়ে বড় ফল। এটি প্রায় ১০০ পাউন্ড (৪৫ কেজি) পর্যন্ত ওজন করতে পারে। এ ফল গাছের ডালে বা মাঝামাঝি শরীরে ধরা পড়ে। ঝুলন্ত ফল মাটি থেকে ৩০৪০ এবং ৫০ফুট পর্যন্ত উঁচু হতে পারে। কাঁঠালও অত্যন্ত পুষ্টিকর। এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, পটাশিয়াম এবং ভিটামিন বি সমৃদ্ধ। এবং কাঁঠালের পুষ্টির মান প্রতি আধা কাপে প্রায় ৯৫ ক্যালোরি, যা বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের প্রধান খাদ্য (ভাত বা অন্যান্য শস্য) থেকে কম। গ্রীক দার্শনিক থিওফ্রাস্টাস ৩০০  খ্রিস্টপূর্বাব্দে লিখেছিলেন যে আরও একটি গাছ রয়েছে, যা খুব বড় এবং যার ফল অসাধারণ মিষ্টি। ভারতের বস্ত্রহীন ঋষিরা এই ফল খান। সম্ভবত থিওফ্রাস্টাস শেয়াল সম্পর্কে লিখেছেন। ফলের উৎপত্তিস্থল ভারতে। বাংলাদেশে এটি কাঁঠাল নামে পরিচিত কিন্তু থাইল্যান্ডে ফলটিকে কানুন এবং মালয়েশিয়ায় ফলটিকে নাংকা বলা হয়।

কাঁঠালের পুষ্টিগুণ-


প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁঠালে রয়েছে ২৪ গ্রাম মোট কার্বোহাইড্রেট, ২ গ্রাম খাদ্য আঁশ, ১  গ্রাম প্রোটিন, ২১৭  মিলিগ্রাম ভিটামিন এ, ৬.৭  মিলিগ্রাম ভিটামিন সি, ৩৪  মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ৩৭ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম, ৩০৩ মিলিগ্রাম এবং ফসফরাস  ৩০৩ মিলিগ্রাম। ৯৪ মিলিগ্রাম ক্যালোরি। খনিজ পদার্থ - ১.১ গ্রাম ক্যালোরি ৪৮, আমিষ - ১.৮ গ্রাম, শর্করা ৯.৯ গ্রাম, ক্যালসিয়াম - ২০  মিলিগ্রাম। গ্রাম, আয়রন-০.৫মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি ১-.১১ মিলিগ্রাম। গ্রাম, ভিটামিন বি২-১৫ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি-২১ মিলিগ্রাম, কেরাটিন-৪৭০০ মাইক্রোগ্রাম, অ্যাশ-০.২ গ্রাম, ফ্যাট-০.১ গ্রাম, জলের পরিমাণ-৮৮ গ্রাম।

কাঁঠালের উপকারিতা-


কাঁঠাল পুষ্টিগুণে ভরপুর। এতে থায়ামিন, রিবোফ্লাভিন, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, আয়রন, সোডিয়াম, জিঙ্ক এবং নিয়াসিন সহ বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান রয়েছে। অন্যদিকে, কাঁঠাল মানবদেহের জন্য খুবই উপকারী কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি, শর্করা এবং ভিটামিন রয়েছে।


. কাঁঠালের ভিটামিন সি শরীরকে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ এবং শ্বেত রক্তকণিকা থেকে রক্ষা করে কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে।


. কাঁঠালের মধ্যে লিগনান, স্যাপোনিন এবং ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট রয়েছে যেমন এই পদার্থগুলির স্বাস্থ্য রক্ষাকারী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই উপাদানগুলির ক্যান্সার প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে। কোলন ক্যান্সার, ফুসফুসের ক্যান্সার, ওরাল ক্যাভিটি ক্যান্সার, প্রোস্টেট ক্যান্সার, স্তন ক্যান্সার, অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সার।


. কাঁঠাল শরীরের শক্তি বাড়ায়। কাঁঠালে উপস্থিত ফ্রুক্টোজ এবং সুক্রোজ রক্তে শর্করার মাত্রা না বাড়িয়ে চমৎকার শক্তি বৃদ্ধিকারী।


. কাঁঠাল ত্বকের বলিরেখা বা বয়সের দাগ কমাতে সাহায্য করে। কাঁঠালের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান বয়ঃবৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে ধীর করে দেয়, যার ফলে ত্বকে বয়সের দাগের উপস্থিতি হ্রাস পায়। তাই ত্বকের বয়স ধরে রাখতে অর্থাৎ মুখের সৌন্দর্য অনেকদিন ধরে থাকে।


. হজমে কাঁঠালের অনেক উপকারিতা রয়েছে। এর অ্যান্টি-আলসার বৈশিষ্ট্যের কারণে, এটি আলসার প্রতিরোধ করতে পারে এবং হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। এছাড়া কোষ্ঠকাঠিন্য থাকলে কাঁঠাল খেলে মলত্যাগ সহজ হয়।


. কাঁঠালে চর্বি খুব কম। এই ফল খাওয়ার ফলে ওজন বৃদ্ধির ঝুঁকি কম থাকে।


. কাঁঠাল ভিটামিন এ সমৃদ্ধ যা রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে।


. উচ্চ রক্তচাপ কমায়। কাঁঠাল পটাশিয়ামের একটি চমৎকার উৎস। ১০০গ্রাম কাঁঠালে ৩০৩  মিলিগ্রাম পটাসিয়াম থাকে। পটাসিয়াম উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। এ কারণে কাঁঠাল উচ্চ রক্তচাপ উপশম করে। উচ্চ রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখে এবং হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।


. কাঁঠালের স্বাস্থ্য উপকারিতার মধ্যে রয়েছে অ্যাজমা-বিরোধী বৈশিষ্ট্য। কাঁঠালের মূল ও এর নির্যাস সিদ্ধ করে সেবন করলে হাঁপানি প্রতিরোধ করা যায় বলে গবেষণায় বলা হয়েছে।


১০. একজন গর্ভবতী মা প্রতিদিন ২০০ গ্রাম পাকা কাঁঠাল খেলে গর্ভবতী শিশুর সকল পুষ্টির ঘাটতি দূর হবে এবং গর্ভবতী শিশুর বৃদ্ধি স্বাভাবিক হবে। এই কাঁঠালের সবচেয়ে বড় গুণ হল এটি মায়ের দুধের পরিমাণও বাড়ায়।

রেফারেন্সঃ daily-bangladesh.com

Post a Comment

Previous Post Next Post

কুকিজ সম্মতি

এই ওয়েবসাইটটি আপনাকে একটি ভালো ব্রাউজিং অভিজ্ঞতা দিতে কুকিজ ব্যবহার করে। আমাদের ওয়েবসাইট ব্যবহার করে, আপনি কি কুকিজ ব্যবহারে সম্মত আছেন?

আরও জানুন