ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে ঘুরে আসুন সিলেটের দর্শনীয় স্থান সিলেট এর বিছানাকান্দি

ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে ঘুরে আসুন সিলেটের দর্শনীয় স্থান সিলেট এর বিছানাকান্দি

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা সিলেট। সিলেটে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য অনেক দর্শনীয় স্থান রয়েছে। ভ্রমণপিপাসু এবং প্রকৃতিপ্রেমীদের কাছে সিলেট সবচেয়ে পছন্দের স্থান। সিলেটের অন্যতম প্রিয় স্থান বিছানাকান্দি। আজ আপনাদের জানাবো সিলেটের পাথর কোয়ারী বিখ্যাত বিছানাকান্দি সম্পর্কে।

সিলেট বিছনাকান্দির পরিচিতি

ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে ঘুরে আসুন সিলেটের দর্শনীয় স্থান সিলেট এর বিছানাকান্দি
বিছানাকান্দি সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার রুস্তমপুর ইউনিয়নে অবস্থিত। বিছানাকান্দিতে সিলেটের পাথর কোয়ারি বলা হয়। বিছানাকান্দি ছাড়া জাফলংকে পাথর কোয়ারিও বলা হয়। কিন্তু অনিয়ন্ত্রিত খননের কারণে জাফলং এখন আর আগের মতো নেই। তবে বিছানাকান্দি আগের মতোই তার সৌন্দর্য ধরে রেখেছে।

বিছানাকান্দি ভারত ও বাংলাদেশের সীমান্তে অবস্থিত। মেঘালয়ের পাহাড় থেকে স্বচ্ছ জল আসে এবং ছোট-বড় পাথরের উপর পড়ে মনোরম পরিবেশ তৈরি করে। প্রকৃতিপ্রেমীদের কাছে বিছানাকান্দি খুবই আকর্ষণীয় স্থান। পর্যটকদের জন্য প্রধান আকর্ষণ হল বিছানাকান্দি উপর দিয়ে প্রবাহিত স্বচ্ছ জল এবং পাহাড়ের উপর দিয়ে চলা মেঘ। জল, পাহাড়, পাথর, বাতাস আর আকাশের সাথে এই বিছানাকান্দিতে প্রকৃতির সৌন্দর্যের জাদুতে বাধার মতো। মনোরম পরিবেশে আপনার মনে হবে আপনি প্রকৃতির বুকে আছেন। প্রশান্তি নেমে আসবে ব্যস্ত শহরের ব্যস্ত জীবনে। এতই শান্তিময় যে এটি আপনাকে বারবার ফিরিয়ে আনবে নিরবধি সৌন্দর্যের এই সিলেট এর বিছানাকান্দিতে

কখন যাবেন বিছানাকান্দিতে ?

আপনি যে কোন সময় সিলেট এর বিছানাকান্দিতে যেতে পারেন। তবে শীতকালে না যাওয়াই ভালো। এই সময়ে পানি তুলনামূলকভাবে কম থাকে তাই বেডরক তার আকৃতি হারায়। তবে বর্ষাকাল বিছানাকান্দি যাওয়ার উপযুক্ত সময়। এ সময় চারদিকে পানি থাকে এবং প্রকৃতি ফিরে পায় তার অপরূপ সৌন্দর্য। তাই বর্ষা মৌসুমই বিছানাকান্দি যাওয়ার উপযুক্ত সময়।

কিভাবে যাবেন?

দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে বিছানাকান্দি যেতে হলে প্রথমে সিলেট যেতে হবে। দেশের যেকোনো স্থান থেকে বাস, ট্রেন বা নিজের গাড়িতে করে বিছানাকান্দি যেতে পারেন।

ঢাকা থেকে কিভাবে যাবেন?

ঢাকা থেকে প্রথমে সিলেট যেতে হবে। তাই আপনি বাস, ট্রেন বা প্লেনে যেতে পারেন। আর নিজের গাড়ি থাকলে তো দরকার নেই। সিলেটে পৌঁছে প্রথমে আম্বরখানা থেকে সিএনজি বা অটোতে করে হাদার বাজার যান। হাদার বাজার থেকে মাত্র ২০ মিনিটের দূরত্বে বিছানাকান্দি । হাদার বাজার থেকে নৌকায় করে পৌঁছে যাবেন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা সিলেট এর বিছানাকান্দি 

যাতায়াত খরচ

ঢাকা থেকে ফকিরাপুর, সয়দাবাদ ও মহাখালী বাস স্টেশন এনা, এস আলম, শ্যামলী, সৌদিয়া এবং গ্রীন লাইন পরিবহনে এসি বাসে যাতায়াত করতে পারবেন। সেক্ষেত্রে ভাড়া পড়বে ৭০০ থেকে ১২০০ টাকার মধ্যে। নন এসি বাসে ভাড়া পাবেন ৪৫০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা।

ট্রেনে যেতে চাইলে কমলাপুর বা বিমানবন্দর রেলস্টেশন থেকে জয়ন্তিকা, উপবন, কালনী এবং পারাবত এক্সপ্রেসে যেতে পারেন।

ঢাকা থেকে বিমানেও যেতে পারেন। আকাশপথে গেলে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই পৌঁছে যাবেন। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে আপনি রিজেন্ট, ইউনাইটেড, নভো, ইউএস বাংলা এয়ার বা বাংলাদেশ বিমান ফ্লাইট করতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনার খরচ হতে পারে ৩০০০ থেকে ৭০০০ পর্যন্ত।

ঢাকার বাইরে যেকোনো স্থান থেকে বাসে বা ট্রেনে সিলেট বিছানাকান্দিতে যেতে পারেন।

কোথায় থাকবেন?

বিছানাকান্দি থেকে সিলেট বেশি দূরে নয়। বিছানাকান্দিতে নাস্তায় ও ভালো থাকার ব্যবস্থা নেই। তাই সারাদিন ঘুরে বেড়ানোর পর সিলেটে গিয়ে ভালো কোনো হোটেল বা রিসোর্টে থাকতে পারেন। সিলেটে থাকার জন্য ভালো হোটেল আছে। কম খরচে সিলেটের লালা বাজার ও দারোগা রোডে থাকার জন্য খুব ভালো হোটেল পাবেন।

কি খাবেন?

বিছানাকান্দিতে  খাওয়ার তেমন কোনো ব্যবস্থা নেই। বাইরে থেকে খাবার আনতে পারেন। হাদার বাজারে কিছু স্থানীয় খাবারের হোটেল আছে, এসব হোটেলে গিয়ে  খেতে পারেন। এছাড়া সিলেটে ভালো ভালো রেস্টুরেন্ট আছে। আপনি চাইলে সিলেট থেকেও বিছানাকান্দিতে বেড়াতে যেতে পারেন। শুকনো খাবার ও পানি বহন করতে পারে।

বিছানাকান্দিতে ভ্রমণের কিছু টিপস

ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে ঘুরে আসুন সিলেটের দর্শনীয় স্থান সিলেট এর বিছানাকান্দি
  • নৌকা এবং সিএনজি ভাড়া করার সময় ভাল দর কষাকষি করুন।
  • গ্রুপ করতে পারলে খরচ কম হবে।
  • স্থানীয়দের সাথে ভালো ব্যবহার করুন, তাদের সাথে ভদ্র আচরণ করার চেষ্টা করুন।
  • পরিবেশের ক্ষতি হয় এমন কিছু করবেন না।

বিছানাকান্দিতে ভ্রমণে কিছু সতর্কতা

  • বিছানাকান্দিতে চারপাশে অনেক পাথর। তাই সাবধানে চলুন।
  • পানিতে নামার আগে আগে খুব সাবধান।
  • বর্ষাকালে, জলের স্রোত খুব বেশি থাকে, তাই পানিতে নামার আগে খুব সতর্কতা অবলম্বন করুন।
  • সন্ধ্যার আগে শহরে ফেরার চেষ্টা করুন।

প্রকৃতির অপার সৌন্দর্যের সান্নিধ্য পেতে চাইলে অবশ্যই বিছানাকান্দি ঘুরে আসতে হবে। প্রশান্তি নেমে আসবে আপনার ব্যস্ত ব্যস্ত জীবনে। আপনি বিছানার পাথর, জল এবং পর্বত কবজ পরিবার বা বন্ধুদের সঙ্গে পরিদর্শন করতে পারেন!

রেফারেন্সঃ shajgoj.com

Post a Comment

Previous Post Next Post

কুকিজ সম্মতি

এই ওয়েবসাইটটি আপনাকে একটি ভালো ব্রাউজিং অভিজ্ঞতা দিতে কুকিজ ব্যবহার করে। আমাদের ওয়েবসাইট ব্যবহার করে, আপনি কি কুকিজ ব্যবহারে সম্মত আছেন?

আরও জানুন