আপনার ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে সিলেট জাফলং ঘুরে আসুন

আপনার ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে সিলেট জাফলং ঘুরে আসুন
জাফলং ভ্রমণ - জাফলং (Jaflong) ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সীমান্তবর্তী বাংলাদেশের পিয়াইন নদীর অববাহিকায় খাসিয়া-জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত। জাফলং সারাদেশে প্রকৃতি কন্যা নামে পরিচিত। খাসিয়া জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত জাফলং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অনন্য আশ্রয়স্থল। পিয়াইন নদীর তীরে স্তরিত শিলার গঠন জাফলংকে আকর্ষণীয় করে তুলেছে। ভ্রমণপিপাসুদের কাছে জাফলংয়ের আকর্ষণই আলাদা।


সীমান্তের ওপারে ভারতের ডাউকি অঞ্চল। ডাউকি নদী আসামের ওম নদী থেকে উৎপন্ন হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। ওম নদী আবার আসামের জৈন্তা পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়েছে। এই ডাউকি নদী বাংলাদেশে পিয়াইন নদী নামে পরিচিত। এই পিয়াইন বা ডাউকি নদীর অববাহিকায় জাফলং গড়ে উঠেছিল। একদিকে পাহাড় আর অন্যদিকে নদী- এই দুইয়ের সংমিশ্রণ এই জায়গাটিকে দিয়েছে এক অপূর্ব সম্প্রীতি। ফলে এটি বাংলাদেশীদের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটন খাতে পরিণত হয়েছে।


সিলেট জেলার জাফলং-তামাবিল-লালাখাল অঞ্চলে রয়েছে পাহাড়ি উত্থান। এই উত্থানে পাললিক শিলা উন্মোচিত হয়, তাই বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বহুবার সেখানে ভূতাত্ত্বিক জরিপ করা হয়েছে। এখানে পাললিক শিলা পাওয়া গেছে, তাই বাংলাদেশ সরকার বেশ কিছু ভূতাত্ত্বিক জরিপ সম্পন্ন করেছে।


এখানকার নদীটি ভারতীয় হিমালয় থেকে উৎপন্ন হয়েছে এবং জাফলংয়ের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় অনেক ছোট-বড় পাথর বহন করে। জীবিকা নির্বাহের জন্য অনেকেই এই পাথরের উপর নির্ভরশীল। নদীতে নৌকা ভ্রমণের সময় এখানে আপনি সত্যিই শিলা এবং বালি খনির সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারেন।

জাফলং এর দর্শনীয় স্থান

সিলেটের জাফলং দেশজুড়ে ভ্রমণপ্রিয় মানুষের কাছে প্রকৃতি কন্যা হিসেবে পরিচিত। জাফলং এর মোহনীয়তাই আলাদা। জাফলং না গেলে সিলেট ভ্রমণ অসম্পূর্ণ। খাসিয়া জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত জাফলং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অপূর্ব আশ্রয়স্থল। পিয়ানি নদীর তীরে স্তরিত শিলার গঠন জাফলংকে আকর্ষণীয় করে তুলেছে।
আপনার ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে সিলেট জাফলং ঘুরে আসুন

সীমান্তের ওপারে ভারতের পাহাড়ি পাহাড়, ডাউকি পাহাড় থেকে বয়ে চলা পানির অবিরাম স্রোত, ঝুলন্ত ডাউকি সেতু, পিয়াইন নদীর স্বচ্ছ নীল জল, সুউচ্চ পাহাড়, শ্যামল প্রকৃতি আর নির্মল নীরবতা। এলাকাটি পর্যটকদের দারুণভাবে মুগ্ধ করেছে। পিয়ানি নদী বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সমানভাবে প্রবাহিত। এসব দৃশ্য দেখতে প্রতিদিন হাজার হাজার দেশি-বিদেশি পর্যটক জাফলংয়ে ভিড় জমায়।


জাফলং একটি সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক পাহাড়ি এলাকা, যেখানে পাহাড় এবং বন একসাথে থাকে। পাহাড়ের ভিতর দিয়ে গড়িয়ে পড়া স্বচ্ছ ঝর্ণার জলে পাথর গড়িয়ে পড়ল। বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে একটু এগোলেই নৌকা ও ট্রলার পাওয়া যায়। সীমান্তের ওপারে খাসিয়াদের বাড়িঘর দেখা যায়। বিএসএফ, বিজিবির ঘোরাঘুরি ও ছোট টং দোকানও দেখা যায় এখানে। বল্লাঘাটের তীরে স্তরে স্তরে পাথরের স্তূপ থাকায় জাফলং আকর্ষণীয়।


সীমান্তের ওপারে, জাফলং পর্যটকদের আকর্ষণ করে ভারতের ডাউকি পাহাড় থেকে ঝরনার অবিরাম স্রোত, মারি নদীর স্ফটিক স্বচ্ছ হিমশীতল জল, উঁচু পাহাড়ের ঘন বন এবং নির্মল নীরবতা। প্রতিদিন অসংখ্য দেশি-বিদেশি পর্যটক এই প্রাকৃতিক জলপ্রপাত দেখতে আসেন। এই এলাকায় যেমন সাধারণ বাঙালিদের বাস, তেমনই উপজাতিরাও। জাফলংয়ে বাল্লা, সংগ্রামপুঞ্জি, নক্ষ্যপুঞ্জি, লামাপুঞ্জি এবং প্রতাপপুর সহ ৫টি খাসিয়াপুঞ্জি রয়েছে।


বাংলাদেশ সীমান্তে দাঁড়ালে ভারতীয় সীমান্তের অভ্যন্তরে সুউচ্চ পর্বতশ্রেণী দেখা যায়। এছাড়া সর্পিল ডাউকি নদীও পর্যটকদের আকর্ষণ করে। নদীটি তার জীবন ফিরে পায়, এবং আরও মনোরম হয়ে ওঠে, যখন মৌসুমি বায়ুর কারণে সৃষ্ট ভারতীয় সীমান্তে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে নদীর প্রবাহ বৃদ্ধি পায়। ডাউকি নদীর পানির স্বচ্ছতাও জাফলংয়ের অন্যতম আকর্ষণ।


পহেলা বৈশাখে বাংলা নববর্ষকে ঘিরে জাফলংয়ে একটি বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়। এ মেলাকে ঘিরে পুরো এলাকা হয়ে ওঠে উৎসবে। বর্ষা ও শীতে জাফলংয়ের সৌন্দর্য ফুটে ওঠে। বর্ষাকালে বৃষ্টিতে ভিজানো গাছ এবং বয়ে যাওয়া নদীগুলি দেখার মতো একটি দৃশ্য। তাছাড়া পাহাড়ের চূড়ায় মেঘের দৃশ্যও বেশ মনোরম।


ভ্রমণের সেরা সময়

জাফলংয়ে শীত ও বর্ষার সৌন্দর্যই আলাদা। বর্ষায় জাফলংয়ের সৌন্দর্য ফুটে ওঠে ভিন্ন মাত্রায়। ধুলোময় পরিবেশ হয়ে ওঠে স্বচ্ছ। স্নিগ্ধ পরিবেশে শ্বাস নিলে একটা সতেজ অনুভূতি হয়। খাসিয়া পাহাড়ের সবুজ চূড়ায় তুলোর মতো মেঘের ঘনঘটা এবং মাঝেমধ্যে মুষলধারে বৃষ্টি পাহাড়ি রাস্তাগুলোকে বিপজ্জনক করে তুলেছে। সেই সঙ্গে কয়েক হাজার ফুট থেকে নেমে আসা সাদা জলপ্রপাতের দৃশ্য যে কোনো পর্যটকের চোখ কাড়বে। তাই মে থেকে মধ্য জুন সবচেয়ে ভালো সময়।

খাবার হোটেল

পর্যটকদের খাওয়ার জন্য জাফলংয়ে রয়েছে বেশ কিছু রেস্টুরেন্ট। ট্যুরিস্ট রেস্তোরাঁ, জাফলং, তামাবিল জিরো পয়েন্ট, পিকনিক সেন্টার রেস্টুরেন্ট, জাফলং বল্লাঘাট, ক্ষুধা রেস্তোরা, জাফলং বল্লাঘাট।


ঢাকা থেকে সিলেট

ঢাকা থেকে বাস, ট্রেন, প্লেনে সিলেট আসতে পারেন।


বাস

সায়েদাবাদ, গাবতলী থেকে সিলেটগামী বাস ছাড়ে। নন-এসি বাস: ইউনিক, এনা, হানিফ, শ্যামলী ইত্যাদি। ভাড়া – ৪৮০ টাকা এসি। বাসঃ গ্রীন লাইন, লন্ডন এক্সপ্রেস, শ্যামলী ইত্যাদি। ভাড়া – ৮০০-১৬০০ টাকা


প্লেন

বিমান বাংলাদেশ, নভো-এয়ার, ইউএস বাংলা ফ্লাইট ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সিলেট। বিমানের ভাড়া শুরু হয় প্রায় ২৫০০ টাকা থেকে।


রেলগাড়ি

উপবন, জয়ন্তিকা, পারাবত, কালনী ট্রেনগুলো ঢাকা কমলাপুর বা বিমান বন্দর রেলওয়ে স্টেশন থেকে ছেড়ে যায়।


সিলেট থেকে জাফলং

সিলেট থেকে সরাসরি জাফলং যেতে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা সময় লাগবে। বাস, সিএনজি, লেগুনা বা মাইক্রোবাসে করে জাফলং যেতে পারেন। কদমাতলী থেকে জাফলংগামী বাস ছাড়ে। জাফলং যাওয়াসহ সারাদিনের সিএনজি ভাড়া হবে ১২০০ থেকে ১৫০০ টাকা, লেগুনা ২০০০-২৫০০ টাকা এবং মাইক্রোবাস রিজার্ভ ৩০০০ থেকে ৫০০০ টাকা।

কোথায় থাকবেন

জাফলংয়ে ভালো থাকার ব্যবস্থা নেই। সাধারণত সিলেট শহর থেকে পর্যটকরা আসেন এবং দিন শেষে হোটেলে ফিরে যান। তবে, আয়োজনের সংখ্যার মধ্যে জেলা পরিষদের নলজুড়ি রেস্ট হাউস (প্রি-বুকিং প্রয়োজন), শ্রীপুর পিকনিক স্পট উল্লেখযোগ্য। কিছু বোডিংয়ের ব্যবস্থা পাওয়া যায়. এছাড়া পর্যটকদের থাকার জন্য শ্রীপুর বনে একটি বাংলো রয়েছে।

গেস্ট হাউস এবং রেস্ট হাউস তথ্য:

  • জেলা পরিষদ রেস্ট হাউস, উপজেলা সদর।
  • নলজুড়ি রেস্ট হাউস- নলজুড়ি, জাফলং।
  • গ্রীন পার্ক রেস্ট হাউস, নলজুরী, জাফলং।
  • সওজ বাংলো, জাফলং।

বি:দ্র: অনুগ্রহ করে ঘুরে বেড়ানোর সময় পরিবেশ দূষিত করবেন না, চিপসের প্যাকেট, পানির বোতল এবং অপচনশীল জিনিসপত্র নির্দিষ্ট স্থানে ফেলে দিন। এই পৃথিবী, এই দেশ আমার, তোমার, তাই আমাদের দেশ ও পৃথিবীকে সুন্দর রাখা এবং বজায় রাখা আমার এবং তোমার দায়িত্ব।

অপরূপা জাফলং-সিলেট

সিলেটের অপরূপা জাফলং প্রকৃতি কন্যা নামে সারা দেশে পরিচিত (Aprupa Jaflong)। খাসিয়া জৈন্তা পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থিত জাফলং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এক অনন্য আশ্রয়স্থল। পিয়াইন নদীর তীরে স্তরিত শিলার গঠন জাফলংকে আকর্ষণীয় করে তুলেছে। সীমান্তের ওপারে ভারতীয় পাহাড়ি পাহাড়, ডাউকি পাহাড় থেকে অবিরাম ঝরনা, ঝুলন্ত ডাউকি ব্রিজ, পাইন নদীর স্ফটিক স্বচ্ছ তুষার জল, উঁচু পাহাড়ে ঘন জঙ্গল এবং এলাকার শান্তিপূর্ণ নীরবতা। পর্যটকদের মুগ্ধ করে। এসব দৃশ্য দেখতে প্রতিদিন দেশি-বিদেশি পর্যটকরা ভিড় জমায় এখানে।


প্রকৃতিকন্যা ছাড়াও জাফলং পর্যটকদের কাছে বিউটি স্পট, পিকনিক স্পট, সৌন্দর্যের রানী হিসেবেও পরিচিত। ভ্রমণপিপাসুদের কাছে জাফলংয়ের আকর্ষণই আলাদা। সিলেটে এসে জাফলং পৌঁছালে ভ্রমণ অসম্পূর্ণ থেকে যাবে।


সিলেট শহর থেকে ৬২ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে গোয়াইনঘাট উপজেলায় জাফলং অবস্থিত। জাফলংয়ে শীত ও বর্ষার সৌন্দর্যই আলাদা। বর্ষায় জাফলংয়ের সৌন্দর্য ফুটে ওঠে ভিন্ন মাত্রায়। ধুলোময় পরিবেশ পরিষ্কার হয়ে যায়। নরম পরিবেশে শ্বাস নিলে সতেজতার অনুভূতি পাওয়া যায়। খাসিয়া পাহাড়ের সবুজ চূড়ায় তুলোর মতো মেঘের আনাগোনা আর মাঝে মাঝে মুষলধারে বৃষ্টি পাহাড়ি পথকে বিপদজনক স্থানে পরিণত করে এক অন্যরকম রোমাঞ্চ। সেই সঙ্গে কয়েক হাজার ফুট থেকে নেমে আসা সাদা জলপ্রপাতের দৃশ্য চোখে পড়ার মতো।


জাফলং বাংলাদেশের সিলেটের সীমান্ত এলাকায় অবস্থিত। ওপারে ভারতের ডাওকি অঞ্চল। ডাওকি নদী ডাওকি  অঞ্চলের পাহাড় থেকে এই জাফলং হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। জাফলং পিয়ান নদীর অববাহিকায় অবস্থিত। সিলেট জেলার জাফলং-তামাবিল-লালখান অঞ্চলে রয়েছে পাহাড়ি উত্থান। এই উত্থানে পাললিক শিলা উন্মোচিত হয়, তাই বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বহুবার সেখানে ভূতাত্ত্বিক জরিপ করা হয়েছে।


ভোলাগঞ্জ-জাফলংয়ে পাওয়া শক্ত শিলা নুড়িসহ বাংলাদেশে চার ধরনের শক্ত শিলা পাওয়া যায়। এছাড়া বর্ষা মৌসুমে ভারতীয় সীমান্তবর্তী শিলং মালভূমির পাহাড়ে প্রবল বৃষ্টিপাত হলে ডাওকি নদীর প্রবল স্রোত ওই পাহাড় থেকে বড় বড় পাথর নিয়ে আসে।


তাই সিলেট এলাকার জাফলং নদীতে প্রচুর পাথর রয়েছে। আর এই পাথর উত্তোলন ও এর প্রক্রিয়াজাতকরণকে ঘিরেই গড়ে উঠেছে এ এলাকার মানুষের একটি বড় অংশের জীবিকা।


পাথর ছাড়াও কাদামাটি বা চীনামাটির বাসনও জাফলংয়ে পাওয়া গেছে, যদিও কাদামাটি বা বালি পরিশোধনের কোনো অবকাঠামো নেই।


এই এলাকায় যেমন সাধারণ বাঙালিদের বাস, তেমনই উপজাতিরাও। জাফলংয়ে বল্লা, সংগ্রামপুঞ্জি, নকশিয়াপুঞ্জি, লামাপুঞ্জি এবং প্রতাপপুর সহ ৫টি খাসিয়াপুঞ্জি রয়েছে। আদমশুমারি অনুসারে, জাফলংয়ে ১,৯৫৩ জন খাসিয়া উপজাতি বাস করে।

জীববৈচিত্র্য:

জাফলং অঞ্চলের উদ্ভিদ প্রজাতির মধ্যে খাটো প্রজাতির মধ্যে পাম গাছ (Licuala species) পাওয়া যায়।

আপনার ব্যস্ত জীবনে স্বস্তি আনতে সিলেট জাফলং ঘুরে আসুন

জাফলংয়ে নারকেল ও সুপারি গাছের আশেপাশে প্রচুর বাদুড়ের বসবাস। এছাড়া জাফলং বাজার বা জাফলং জমিদার বাড়িতে বাদুড়ের বসতি। যাইহোক, খাদ্য ঘাটতি, এবং মানুষের হস্তক্ষেপ, বা অনিয়ন্ত্রিত বন উজাড়ের কারণে, অনেক বাদুড় জাফলং ছেড়ে জৈয়ন্তিয়া ও গোয়াইনঘাট বা প্রতিবেশী ভারতের বনে যাচ্ছে।

অবস্থান:

সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট উপজেলায় অবস্থিত। সিলেট জেলা সদর থেকে সড়কের দূরত্ব মাত্র ৫৬ কিলোমিটার।

কিভাবে যাবেনঃ

সিলেট থেকে আপনি বাস/মাইক্রোবাস/সিএনজি চালিত অটোরিকশায় করে জাফলং যেতে পারেন। ১ ঘন্টা থেকে ১.৩০ ঘন্টা সময় লাগবে। সিলেট থেকে বাস, মাইক্রোবাস, সিএনজি অটোরিকশা বা লেগুনায় জাফলং যাওয়া যায়। জাফলং যেতে বাস ভাড়া পড়বে জনপ্রতি ৮০ টাকা। মাইক্রোবাসের ভাড়া ৩০০০-৩৫০০ টাকা। সিএনজি অটোরিকশা ভাড়া হবে ১০০০-১২০০ টাকা। সিলেট শহরের যেকোনো অটোরিকশা বা মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড থেকে জাফলং বুক করা যায়।

কাছাকাছি দেখার জায়গা:

  • খাসিয়া পুঞ্জি
  • পান বাগান
  • খাসিয়া রাজ বাড়ি


রেফারেন্সঃ infobd.org

Post a Comment

Previous Post Next Post

কুকিজ সম্মতি

এই ওয়েবসাইটটি আপনাকে একটি ভালো ব্রাউজিং অভিজ্ঞতা দিতে কুকিজ ব্যবহার করে। আমাদের ওয়েবসাইট ব্যবহার করে, আপনি কি কুকিজ ব্যবহারে সম্মত আছেন?

আরও জানুন