নীলগিরি ভ্রমণ গাইড বাংলার দার্জিলিং ঘুরে আসুন

নীলগিরি ভ্রমণ গাইড বাংলার দার্জিলিং ঘুরে আসুন


নীলগিরি পর্যটন কেন্দ্রটি বান্দরবান জেলা সদর থেকে প্রায় ৫২ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে বান্দরবান-থানচি সড়কের পাহাড়ের চূড়ায় অবস্থিত। নীলগিরি পর্যটন কেন্দ্রটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ২২০০ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত। নীলগিরি থেকে পর্যটকরা সহজেই মেঘ স্পর্শ করতে পারে বলে একে বাংলাদেশের দার্জিলিংও বলা হয়। নীলগিরির পর্যটন কেন্দ্রে দাঁড়িয়ে সব দেখতে পাবেন সবুজ আর সবুজ। সবুজে ঘেরা আর নির্জন প্রকৃতি নীলগিরির অন্যতম আকর্ষণ।

দিনের বেলায় নীলগিরি থেকে খালি চোখে বঙ্গোপসাগর ও জাহাজ চলাচল দেখা যায়। এছাড়া ছোট ছোট পাহাড়ের মধ্য দিয়ে বয়ে চলা আকাবাকা নদীর সাঙ্গুর অপরূপ দৃশ্য সবাইকে আকৃষ্ট করে। নীলগিরির চূড়া থেকে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পর্বত কেওক্রাডং, প্রাকৃতিক বিস্ময় বগালেক, কক্সবাজারের সমুদ্র, চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরের আলো-আঁধারি আলো এবং চোখ ধাঁধানো পর্বতমালাও দেখা যায়।

নীলগিরির কাছাকাছি মোরো আদিবাসী গ্রাম রয়েছে। কাপ্রু পাড়া, নীলগিরির খুব কাছে, আপনি সহজেই ঘুরে আসতে পারেন এবং ম্রো আদিবাসীদের সম্পর্কে জানতে পারেন। নীলগিরিতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একটি ক্যাম্প রয়েছে। ফলে এখানে নিরাপত্তার অভাব নেই। আপনার যে কোনো প্রয়োজনে সেনা সদস্যরা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবে।

নীলগিরি ভ্রমণ গাইড বাংলার দার্জিলিং ঘুরে আসুন



নীলগিরির রাতের সৌন্দর্য আরও মর্মান্তিক। হরিণ, শেয়াল সহ বিভিন্ন বন্য প্রাণীর ডাক এবং পাহাড়ে আলো-আঁধারের খেলা আপনার জীবনকে রহস্যময় করে তুলবে। রাতের নীলগিরি হতে পারে অ্যাডভেঞ্চার প্রেমীদের জন্য সেরা জায়গা।

নীলগিরি যাওয়ার পথে বান্দরবানের সুন্দর শিলাপ্রপাত দেখতে পাবেন। এখানে আপনাকে উপজাতীয় বম মেয়েরা স্বাগত জানাবে। এখান থেকে আদিবাসীদের হাতে তৈরি বিভিন্ন পণ্য কিনতে পারবেন। এর পর স্বপ্নের চূড়া দেখতে পাবেন। স্বপ্নচূড়া থেকেও বান্দরবানের অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়।

নীলগিরিতে কখন যাবেন

নীলগিরি সারা বছর তার রূপ বিস্তার করে। এই সূর্য, এই মেঘ, এই বৃষ্টি। এভাবেই নীলগিরিতে প্রকৃতির পরিবর্তন ঘটতে থাকে। নীলগিরিরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রূপ নেয়। সারা বছর মেঘের আনাগোনা চললেও বর্ষা, শরৎ, বর্ষা ও শীতে মেঘের মেলা বসে। তাই শরৎ, শীত, শীত ও বর্ষাকালে নীলগিরি সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্থান। শরৎ ও শীতে নীল আকাশ ও মেঘের আবরণ এবং শীতকালে কুয়াশায় আচ্ছন্ন চারপাশ, এ প্রকৃতির এক অপূর্ব রূপ। তাই আপনি যে কোনো সময় নীলগিরি ঘুরে আসতে পারেন। তবে বর্ষায় অতিরিক্ত বৃষ্টি হলে ভূমিধসের আশঙ্কা রয়েছে। তাই এ সময় পর্যটকদের সুবিধার্থে সড়কটি বন্ধ রাখা হতে পারে।

নীলগিরিতে কীভাবে যাবেন

আপনি প্রতিদিন ঢাকা থেকে বিভিন্ন পরিবহন সেবা নিয়ে সরাসরি বান্দরবান সদরে পৌঁছাতে পারেন। বান্দরবান সদর থেকে চান্দের গাড়িতে করে নীলগিরি যেতে পারেন।

অথবা চট্টগ্রামের বহদ্দারহাট থেকে পূরবী-পূর্বানী নন এসি বাস সার্ভিস এবং কদমতলী থেকে বান্দরবান পর্যন্ত বিআরটি এসি বাস সার্ভিস। এছাড়াও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার সড়কের কেরানীহাট স্টেশন থেকে বান্দরবান-কেরানীহাট বাস সার্ভিস চালু রয়েছে। আপনি আপনার পছন্দ মত বান্দরবান যেতে পারেন।
দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে নীলগিরি যেতে হলে প্রথমে বান্দরবান যেতে হবে। ঢাকা থেকে বাস বা ট্রেনে বান্দরবান যেতে পারেন। বাসে যেতে চাইলে যেকোন দিক থেকে হানিফ, এস আলম, সৌদিয়া, সেন্ট মার্টিন পরিবহন, ডলফিন, শ্যামলী ইত্যাদি বাস বান্দরবানের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এক্ষেত্রে নন-এসি ভাড়া ৫০০-৫৫০ এবং এসি বাসের ভাড়া ৯০০-১৬০০। বাসে বান্দরবান পৌঁছাতে ৭-১০ ঘণ্টা সময় লাগবে।

ঢাকা থেকে বান্দরবান সরাসরি কোনো ট্রেন নেই। ঢাকা থেকে প্রথমে চট্টগ্রামগামী ট্রেন, সুবর্ণ এক্সপ্রেস, তূর্ণা নিশিতা, মহানগর গোধুলী ও সোনার বাংলাগামী ট্রেনে চট্রগ্রাম যেতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে ক্যাটাগরি ভেদে ভাড়া পড়বে ৩০০-১২০০ টাকা।

চট্টগ্রাম থেকে বাদ্দারহাট হয়ে পূর্বাণী ও পূবালী বাসে করে বান্দরবান যেতে পারেন। এই ক্ষেত্রে, ভাড়া হবে ২০০-২২০। এছাড়াও, আপনি চট্টগ্রামের দামপাড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে ২০০-৩০০ টাকা ভাড়ায় বাসে সরাসরি বান্দরবান যেতে পারেন।

কিভাবে বান্দরবান থেকে নীলগিরিতে যাবেন

বান্দরবান থেকে নীলগিরিতে যাওয়ার অনেক পথ আছে। জীপ, মহেন্দ্র, সিএনজি, লোকাল বাস বা চান্দের গাড়িতে করে নীলগিরি যাওয়া যায়। আপনি যদি পরিবার বা বন্ধুদের সাথে ভ্রমণ করেন তবে একটি রিজার্ভ গাড়ি নেওয়া ভাল। আপনি নীলগিরির পথে অন্যান্য জায়গায়ও যেতে পারেন। দিনের বেলায় ফিরে আসতে চাইলে জীপ নিয়ে যেতে পারেন। আপনি বান্দরবান জিপ স্টেশন থেকে গাড়ির উপর নির্ভর করে ৩০০০-৬০০০ টাকায় এই জীপগুলি ভাড়া করতে পারেন। এছাড়াও চান্দের গাড়ি, সিএনজি, ছোট জীপ ইত্যাদিতে যেতে পারেন। এক্ষেত্রে কোনো সমস্যা না হলে দুই থেকে তিন ঘণ্টার মধ্যে পৌঁছে যাবেন। কিন্তু আপনি যদি নীলগিরির মেঘের মেলায় হারিয়ে যেতে চান, তাহলে খুব ভোরে চলে যান যাতে আপনি ৫-৬ ঘন্টার মধ্যে পৌঁছাতে পারেন।

আপনি যদি সস্তায় যেতে চান তবে আপনি লোকাল বাসেও যেতে পারেন, তবে সময় বেশি লাগবে। কিছুক্ষণ পর থানচি বাসস্ট্যান্ড থেকে থানচির জন্য বাস ছাড়ে। এক্ষেত্রে ভাড়া ১০০-১২০ টাকা। আপনি যদি পরিবার বা বন্ধুদের সাথে যাচ্ছেন, তাহলে লোকাল বাসে না যাওয়াই ভালো।

নীলগিরি ভ্রমণের নিয়ম ও টিকিটের মূল্য

নীলগিরি যাওয়ার পথে, পর্যটকদের সেনা চেকপোস্টে তাদের নাম এবং ঠিকানা নিবন্ধন করতে হয়। এটি পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য রাখা হয়েছে। সাধারণত বিকেল ৫টার পর নীলগিরির রাস্তায় কোনো যানবাহন ঢুকতে দেওয়া হয় না।  তাই সময়ের দিকে নজর রাখবেন।

নীলগিরি পর্যটন কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য জনপ্রতি টিকিট রাখা হয়েছে ৫০ টাকা এবং গাড়ির পার্কিং রাখা হয়েছে ৩০০-৪০০ টাকা।

নীলগিরিতে কোথায় থাকবেন 

বান্দরবানে রয়েছে অসংখ্য রিসোর্ট, হোটেল, মোটেল ও রেস্টহাউস। যেখানে ৬০০ থেকে ৩ হাজার টাকায় রাতারাতি থাকতে পারবেন। যেখান থেকে আপনি আপনার নিজস্ব গাড়ি ভাড়া করে পরিবার সহ নীলগিরি ঘুরে আসতে পারেন। নীলগিরি রিসোর্টে থাকার ব্যবস্থাও রয়েছে। সেক্ষেত্রে সেনা পদমর্যাদার অফিসারের রেফারেন্স লাগবে। কারণ নীলগিরি রিসোর্টে রেফারেন্স ছাড়া কোনো বুকিং নেওয়ার দরকার নেই। অন্যান্যগুলো হল-

হলিডে ইন রিসোর্ট: মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্সের বিপরীতে একটি ছোট পাহাড়ের উপরে হলিডে ইন রিসোর্ট। এখানে অনেক ছোট ছোট কটেজ আছে। ফোন-০৩৬১-৬২৮৯৬

হিলসাইড রিসোর্ট: মিলনছড়ি বান্দরবান-চিম্বুক সড়কের ৫ কিমি নমস্থানে অবস্থিত। একটি ভাল পরিবেশে ভাল রাত্রি আবাসন সুবিধা আছে. মোবাইল-১৫৫৬৫৩৯০২২ 

হোটেল ফোর স্টার: বান্দরবান শহরে অবস্থিত হোটেল ফোর স্টার। এসি এবং নন এসি উভয় রুমই রয়েছে। হোটেলের প্রতিটি রুমে টেলিভিশন রয়েছে। ফোন-০৩৬১-৬২৪৬৬

হোটেল থ্রি স্টার: বান্দরবান শহরে অবস্থিত হোটেল থ্রি স্টার। পরিবারের জন্য ভালো থাকার ব্যবস্থা আছে। তবে এখানে ফ্ল্যাট ভাড়া দেওয়া হয়, রুম নয়। প্রতিটি ফ্ল্যাটে ৮ থেকে ১৫ জন লোক থাকতে পারে। নিজেরা রান্না করে খাওয়ার ব্যবস্থাও রয়েছে। মোবাইল-০১৮১৩২৭৮৭৩১

নীলগিরিতে কোথায় খাবেন

নীলগিরি রিসোর্টে ভালো মানের রেস্টুরেন্ট আছে। আপনি চাইলে এসব রেস্তোরাঁয় খেতে পারেন, তবে এক্ষেত্রে আগে থেকেই খাবার অর্ডার করতে হবে।
আবার বান্দরবানে এসেও খেতে পারেন। বান্দরবানে বেশ কিছু খাবার হোটেল, রেস্তোরাঁ ও ক্যাফে রয়েছে। আপনি চাইলে বান্দরবানে এসে খেতে পারেন।

নীলগিরিতে অন্যান্য আকর্ষণীয় স্থান

নীলগিরি ভ্রমণ গাইড বাংলার দার্জিলিং ঘুরে আসুন


নীলগিরির পথে আরও অনেক আকর্ষণীয় রিসর্ট এবং পর্যটন কেন্দ্র রয়েছে। নীলগিরিতে যেতে হলে শৈল প্রপাট ঝর্ণা, মিলনছড়ি ভিউ পয়েন্ট, চিম্বুক ট্যুরিস্ট সেন্টার, স্বর্ণ মন্দির এবং সাইরু হিল রিসোর্ট পার হতে হয়। আপনি যদি রিজার্ভ গাড়ি না নিয়ে থাকেন তবে আপনি এই স্পটগুলিতে যেতে পারেন। অথবা গাড়ি ঠিক করার সময় আগেই বলে রাখুন । আগে সরাসরি নীলগিরিতে গেলে ভালো হয়। মেঘের কোলে যাওয়ার পথে অন্যান্য আকর্ষণীয় স্থান ঘুরে দেখতে পারেন। আর আপনি যদি বিকেলে নীলগিরিতে সময় কাটাতে চান তাহলে পথে আসা সব আকর্ষণীয় রিসোর্ট এবং পর্যটন কেন্দ্র ঘুরে তারপর নীলগিরিতে যেতে পারেন।

নীলগিরিতে কিছু প্রয়োজনীয় টিপস

  • বান্দরবান থেকে নীলগিরি খুবই আঁকাবাঁকা পাহাড়ি রাস্তা, ভ্রমণের সময় সতর্ক থাকুন।
  • চান্দের গাড়িতে ওঠার সময় ছাদে উঠবেন না।
  • ভ্রমণের সময় অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র সঙ্গে রাখতে হবে।
  • শৈল প্রপাট ঝর্ণার পাথুরে পথটা খুব পিচ্ছিল, নামার সময় সাবধান।
নীলগিরি ভ্রমণ গাইড বাংলার দার্জিলিং ঘুরে আসুন


  • শৈল প্রপাট বা চিম্বুতে আপনি স্বল্প মূল্যে দেশীয় পণ্য কিনতে পারেন।
  • আদিবাসীদের অসম্মান হয় এমন কিছু করবেন না।
  • আপনি যদি কম খরচে নীলগিরি দেখতে চান তাহলে দলবেঁধে যান।
  • মেঘের রাজ্য নীলগিরি ঘুরে আসুন। প্রকৃতির বুকে পরিবার, বন্ধু বা প্রিয়জনদের সাথে ব্যক্তিগত মুহূর্তগুলি উপভোগ করুন।

রেফারেন্স: bangla.tourtoday.com.bd\
shajgoj.com
পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
মন্তব্য নেই
মন্তব্য যোগ করুন
comment url